মেনু নির্বাচন করুন

পূর্বদেবোত্তর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়

  • সংক্ষিপ্ত বর্ণনা
  • প্রতিষ্ঠাকাল
  • ইতিহাস
  • প্রধান শিক্ষক/ অধ্যক্ষ
  • অন্যান্য শিক্ষকদের তালিকা
  • ছাত্র-ছাত্রীর সংখ্যা (শ্রেণীভিত্তিক)
  • পাশের হার
  • বর্তমান পরিচালনা কমিটির তথ্য
  • বিগত ৫ বছরের সমাপনী/পাবলিক পরীক্ষার ফলাফল
  • শিক্ষাবৃত্ত তথ্যসমুহ
  • অর্জন
  • ভবিষৎ পরিকল্পনা
  • ফটোগ্যালারী
  • যোগাযোগ
  • মেধাবী ছাত্রবৃন্দ

রংপুর কুড়িগ্রাম মহা সড়কের উত্তর দিকে কাঠালবাড়ী বাজার হতে ২ কিলোমিটার পশ্চিমে এবং ছিনাই হাট বাজার হতে ১ কিলোমিটার পূর্ব দিকে  মনোরম পরিবেশে বিদ্যালয়টি অবস্থিত। বিদ্যালয়ের জমির পরিমান ৩৩ শতাংশ যার দাগ নং ২৯৪ খতিয়ান নং ১৫৬ দলিল নং ৪,০৮০। বিদ্যলয়ের কক্ষের সংখ্যা ৪ টি এবং বিদ্যালয়ের সামনে শহীদ মিনার রয়েছে।

০২-১০-১৯৯০ সাল

কুড়িগ্রাম জেলার রাজারহাট উপজেলার ছিনাই ইউনিয়নের ১৮টি মৌজার মধ্যে পূর্বদেবোত্তর একটি মৌজা । যার লোক সংখ্যা প্রায় ১০,০০০ জন। উক্ত মৌজায় প্রায় ৮০% লোক অশিক্ষিত ছিল এবং সেখানে কোন প্রাথমিক বিদ্যালয় ছিল না। এই মৌজার কোমল মতি শিশুদের কে শিক্ষার আলোয় আলোকিত করার জন্য ১৯৯০ ইং সালে সুধন চন্দ্র পাল পিতা মৃতঃ শতীষ চন্দ্র পাল একটি প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার পরিকল্পনা গ্রহণ করেন।  পরবর্তীতে তার অক্লান্ত প্রচেষ্ঠায় ও এলাকাবাসীর সহযোগীতায় বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার সিন্ধান্ত গৃহীত হয়। কিন্তু বিদ্যালয় স্থাপনের জন্য সরকারি বিধি মোতাবেক ৩৩ শতাংশ জমি মহাপরিচালক, প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর ঢাকা বরাবর দলিল করে দিতে হয়। এমতাবস্থায় তিনি প্রথমে হতাশা গ্রস্থ্ হন এবং এলাকাবাসীর সহযোগীতা কামনা করেন। উক্ত এলাকার মোঃ মহির উদ্দিন,পিতা মৃতঃ পাদুরা মামুদ একটি শর্তে জমি দিতে আগ্রহ প্রকাশ করেন। শর্তটি হচ্ছে তার ছেলে মোঃ লতিবর রহমান কে শিক্ষক হিসেবে ঐ বিদ্যালয়ে চাকুরী দিতে হবে। নিরুপায় হয়ে তিনি তার ছেলেকে শিক্ষক হিসেবে নেয়ার সিন্ধান্ত নিলেন। শর্ত পূরণ সাপেক্ষে মো্ঃ মহির উদ্দিন ৩৩ শতাংশ জমি মহাপরিচালক, প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর ঢাকা বরাবর দলিল করে দিলেন এবং দলিলে শর্ত জুড়ে দিলেন যে, যদি কোনদিন বিদ্যালয় রেজিষ্ট্রেশন না হয় তাহলে তার জমি তারই নামে থেকে যাবে এবং পূর্বের ন্যায় তিনি ভোগদখল করবেন। অবশেষে সুধন চন্দ্র পাল এলাকাবাসীকে সাথে নিয়ে গত ০২/১০/১৯৯০ ইং সালে বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠিত করেন এবং মৌজার নামে নাম করণ করেন। বিদ্যালয়টি সফল ভাবে চালু হওয়ায় উদ্ধর্তন কর্তৃপক্ষের সুপারিশের ভিত্তিতে দীর্ঘ  সাড়ে ৪ বছর পর গত ১৯/০৯/১৯৯৫ ইং তারিখে বিদ্যালয়টি রেজিষ্ট্রেশন হয় যার নম্বর ৩৪৬৮/১১। উল্লেখ্য যে, বিদ্যালয় গৃহ স্থাপন, আসবাপপত্র এবং রেজিষ্ট্রেশন পর্যন্ত যাবতীয় খরচাদি প্রধান শিক্ষক লাল বাবু পাল পিতা সুধন চন্দ্র পাল, সহকারী শিক্ষক সুভাষ চন্দ্র পাল পিতা গকুল চন্দ্র পাল এবং মোছাঃ মরিয়ম বেগম পিতা মোঃ মনির উদ্দিন খান, এই তিনজন শিক্ষকই ব্যয় করেন। গত ২০০১ সালে সহকারী শিক্ষিকা মোছাঃ মরিয়ম বেগম মৃত্যু বরণ করায় তার পদটি শূন্য হয় এবং ২০০৪সালে উক্ত শূন্য পদে সাধনা রানী দাস নিয়োগ প্রাপ্ত হন। বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার পর থেকে লাল বাবু পাল একজন সফল প্রধান শিক্ষক হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসছেন। প্রতি বছর বিদ্যালয়ের ফলাফল ভাল এবং ছাত্র/ছাত্রী বৃত্তি পেয়ে থাকে। গত ১০শে জুলাই ২০১৩ ইং তারিখে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রনালয় রাংলাদেশ সচিবালয় ঢাকা ১০০০ বিদ্যালয় ১ অধিশাখার প্রজ্ঞাপনের  মাধ্যমে  বিদ্যালয়টিকে গত ০১/০১/২০১৩ ইং হতে সরকারি করণ করেন।

ছবি নাম মোবাইল ইমেইল
লাল বাবু পাল ০১৭১৭২৯২৩১১ chinai.uisc@gmail.com

ছবি নাম মোবাইল ইমেইল
মোঃ লতিবর রহমান ০১৭৩৫১০৪৭৮৫ chinai.uisc@gmail.com
সুভাষ চন্দ্র পাল ০১৭৩৭০৭১৮৩৩ chinai.uisc@gamil.com
সাধনা রানী দাস ০১৭৬২৮৯০৯০৩ chinai.uisc@gamil.com
মোছাঃ রোকসোনা আফরোজ ০১৭৩৪৭৪১০৬৬ chinai.uisc@gmail.com

২০১৬ সালেন ছাত্র/ছাত্রীর তথ্যাদি

শিশু শ্রেণী-ছাত্র-১৪ ছাত্রী ১১ মোট=২৫

প্রথম শ্রেণী ছাত্র-১৮ ছাত্রী ১১ মোট=২৯

দ্বিতীয় শ্রেণী ছাত্র-৩০ ছাত্রী ১৯ মোট=৪৯

তৃতীয় শ্রেণী ছাত্র-১৩ ছাত্রী ১৩ মোট=২৬

চতুর্থ শ্রেণী ছাত্র-০৮ ছাত্রী ১২ মোট=২০

পঞ্চম শ্রেণী ছাত্র-১২ ছাত্রী ১৭ মোট=২৯

১০০%

১। মোঃ মজিবর রহমান (সভাপতি)

২। মোঃ রফিউদ দারাজাৎ বসুনিয়া (সহ-সভাপতি)

৩।মোঃ সফিকুল ইসলাম (সদস্য)

৪। মোঃ মহির উদ্দিন (সদস্য)

৫। দিপক চন্দ্র সরকার (সদস্য)

৬। মোঃ সোবাহান আলী(সদস্য)

৭। সরশ্বতী রানী পাল (সদস্য)

৮। রনজিতা রানী (সদস্য)

৯। মোছাঃ উম্মে কুলছুম (সদস্য)

১০। সাধনা রানী দাশ (সদস্য)

১১। লাল বাবু পাল (সদস্য সচিব)

 

 

২০০৮ সাল ১০০%

২০০৯ সাল ১০০%

২০১০ সাল ১০০%

২০১১ সাল ১০০%

২০১২ সাল ১০০%

২০১৩ সাল ১০০%

২০১৪ সাল ১০০%

২০১৫ সাল ১০০%

২০০৮ সালে বৃত্তি

১। মর্জিনা খাতুন (মোহনা) ট্যালেন্ট পুল

২০০৯ সালে বৃত্তি

১। জান্নাতুন ফেরদৌস ( ট্যালেন্ট পুল

২। সাবু মিয়া ( সাধারণ

২০১০ সালে বৃত্তি

১। আজমান ফায়েক ( ট্যালেন্ট পুল

২০১১ সালে বৃত্তি

১। সুমাইয়া আক্তার (নিহা ) সাধারণ

ভর্তি ১০০% ,ফলাফল ১০০%। ২০০২ ইং, ২০০৪ইং, এবং ২০০৫ইং সালে প্রধান শিক্ষক লাল বাবু পাল উপজেলা ও জেলা পর্যায়ে শ্রেষ্ঠ শিক্ষক নির্বাচিত হন।

সার্বজনীন প্রাথমিক শিক্ষা বাস্থবায়নের লক্ষ্যে মানসম্মত শিক্ষা দানের মাধ্যমে এলাকার শিশুদের কে সু-নাগরিক হিসেবে গড়ে তোলা।

সুগম

১। মর্জিনা খাতুন (মোহনা)

২। জান্নাতুন ফেরদৌস

৩। সাবু মিয়া

৪। আজমান ফায়েক

৫। সুমাইয়া আক্তার (নিহা )

৬। শাহিনুর ইসলাম

৭।



Share with :

Facebook Twitter