মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
পাতা

ভাষা ও সংষ্কৃতি

 

বর্তমান কুড়িগ্রাম জেলার রাজারহাট উপজেলা বৃহত্তর রংপুর অঞ্চলের একটি উপজেলা।উপজেলা হিসেবে রাজারহাটে আত্মপ্রকাশ অধুনা হলেও এ অঞ্চলের ভাষা ওসাংস্কৃতিক ঐতিহ্য সুপ্রাচীন। বাংলা ভাষার আদি নিদর্শন ৬৫০ থেকে ১২০০খ্রিষ্টাব্দের মধ্যে রচিত চর্যাপদ। এর ভাষা-ভঙ্গি বিশ্লেষণে বলা হয়ে থাকেযে, বাংলা ভাষার উৎপত্তি ঘটেছে গৌড়ীয় প্রাকৃত থেকে গৌড়ীয় অপভ্রংশের মধ্যদিয়ে বঙ্গ-কামরূপী আদি স্তরহতে। চর্যাপদের ভাষায় রাজারহাট,উপজেলার ভাষা-ভঙ্গির অনেক নিদর্শন লক্ষ্য করা যায়। ঘিন, আইস,পসরি প্রভৃতিসহ চর্যাপদে ব্যবহৃত আরও অনেক শব্দ কুড়িগ্রাম জেলার লোকসমাজে এখনও প্রচলিতরয়েছে।

 

 

রাজারহাট উপজেলার লোকসমাজে প্রচলিত ভাষার লক্ষ্যণীয় কিছু বিশেষ দিক নিম্নেপ্রদত্ত হলো-

 

০১. ক্রিয়াপদের আগে‘না’এর ব্যবহার। যেমন ; না খাওঁ (খাইনা), না যাওঁ (যাইনা)।

০২.‘র’বর্ণের সহলে‘অ’বর্ণ ব্যবহারের প্রবণতা। যেমন ; অং (রং), অসূণ (রসূণ)।

০৩.‘ল’বর্ণের সহলে‘ন’বর্ণ ব্যবহারের প্রবণতা। যেমন ; নাল (লাল), নাউ (লাউ)।

০৪. স্থানেরনামের শেষের বর্ণে এ-কারথাকলে তা তুলে দিয়ে শব্দের শেষে‘ত’বর্ণ যুক্তকরণেরপ্রবণতা। যেমন; মাঠত (মাঠে),

     ঘাটত (ঘাটে), হাটত (হাটে)।

০৫. ভবিষ্যতে স্বয়ং কর্ম সম্পাদনের ক্ষেত্রেক্রিয়াপদের শেষে‘ম’বর্ণ ব্যবহারের প্রবণতা। যেমন ; যাইম, খাইম, দেখিম।

০৬. সম্বোধনের ক্ষেত্রে ব্যবহুত কতিপয় শব্দের উদাহরণ হচ্ছে- মুঁই (আমি), হামরা (আমরা), তুঁই (তুমি), তোমরাগুলা  (তোমরা), অঁয় (সে), ওমরা/ওমরাগুলা (তারা)।

 

লোকসমাজেপ্রচলিত ছড়া, ছেল্লক (ধাঁধাঁ বা ছিল্কা), প্রবাদ-প্রবচন, মেয়েলী গীত, মন্ত্র, লোকসঙ্গীত প্রভৃতি লোক সাহিত্যের মূল্যবান উপাদান। এগুলোর মধ্যদিয়ে সন্ধান মিলে আবহমানকাল ধরে চলে আসা মানুষের রুচি, বিশ্বাস, আচার-আচরণ, সংস্কার, রসবোধ, সুখ-দুঃখ, উপদেশ, নিষেধ ইত্যাদির। নিম্নে এ জেলারলোকসাহিত্য ও সংস্কৃতির সংক্ষিপ্ত পরিচয় তুলে ধরা হলো-

 

লোকসঙ্গীত

এউপজেলায় প্রচলিত লোকসঙ্গীতের মধ্যে ভাওয়াইয়া, পল্লীগীতি এবং বাউল সঙ্গীতইপ্রধান। কুষাইন গান, কবি গান, পালাগান, সাদা পাগলার গান, গাঁথার গানপ্রভৃতি লোকসঙ্গীতের আসর এখন আর খুব বেশি নজরে পড়েনা।

 

 

সাহিত্য ও সংস্কৃতি

শিশুমনের অন্যতম খোরাক হচ্ছে-ছড়া। লোকসমাজে মায়েরা যেমন বিভিন্ন ছড়া বলতেবলেতে শিশুদের ঘুমপাড়ায়, তেমনি ছোট ছেলে-মেয়েরা খেলায় বিভিন্ন ধরণের ছড়াব্যবহার করে থাকে। তাছাড়া অন্যকে ক্ষেপিয়ে তুলতেও এরব্যবহার লক্ষ্য করাযায়। উদাহরণস্বরূপ ব্যাপক প্রচলিত কয়েকটি ছড়া নিম্নেপ্রদত্ত হলো-

 

--------------------

-------------------

------------------- 

 

প্রবাদ-প্রবচন

লোকসমাজেকথায় কথায় যে সব প্রবাদ-প্রবচন ব্যবহুত হয় তা একদিকে যেমন শিক্ষনীয়, অন্যদিকে তেমনী ছন্দের অপূর্ব সমন্বয়। এ জেলার লোক-সমাজ প্রবাদ-প্রবচনেরঅফুরন্তভান্ডার। বিভিন্ন বিষয়ে সচরাচর যে সব প্রবাদ-প্রবচনের ব্যবহারলক্ষ্য করা যায়, সেগুলোর কিয়দাংশ নিম্নেপ্রদত্ত হলো-

--------------------

-------------------

-------------------

 

উপজেলা শিল্পকলা একাডেমী

 

রাজারহাট উপজেলায় সুস্থ সংস্কৃতির চর্চা ও বিকাশের লক্ষে ৩০-১০-২০১১ খ্রী: উপজেলা শিল্পকলা একাডেমী গঠিত হয়। শুরু থেকে সংগীত,নৃত্য,তবলা,আবৃত্তি,অভিনয় ও উপস্থাপনা সহ মোট ০৬ টি বিভাগে ০৬ জন প্রশিক্ষক দায়িত্ব পালন করছেন। স্বল্প দিনের মধ্যে এ প্রতিষ্ঠান টি রাজারহাট এর গন্ডী ছাড়িয়ে নিজ জেলা কুড়িগ্রাম ও বিভাগীয় শহর রংপুরে প্রচুর সুনাম ও খ্যাতি অর্জন করেছে। বর্তমানে এই প্রতিষ্ঠানের পদাধিকার বলে সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন রাজারহাট উপজেলা নির্বাহী অফিসার এস.এম.মাজহারুল ইসলাম।সার্বক্ষনিক প্রশিক্ষক ও প্রশাসনের দায়িত্ব পালন করছেন একাডেমীর প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক ও বাংলাদেশ বেতার রংপুর কেন্দ্রের নাট্যকার ও ‌‌‌‌ক শ্রেণীর নাট্যশিল্পী পলাশ চক্রবর্তী।সংগীত প্রশিক্ষকের দায়িত্ব পালন করছেন বেতার ও টিভির লোকগীতি শিল্পী নাজমুল হুদা।চর্চা অবাহ্যত থাকলে এই প্রতিষ্ঠান টি অনেক দুর এগিয়ে যাবে বলে মনে করেন এলাকার সচেতন বোদ্ধা মহল।